ছবি- বিগষ্টক

৭টি সতেজ,সুরক্ষিত থাকার ফিটনেস আর ডায়েট টিপস

নিউট্রিশন অর্গ,হু,টাইম ম্যাগাজিন, বিবিসি হেলথের এক্সপার্ট অ্যাডভাইস।

অতিমারী প্রায় দু বছর ধরে চলছে।এর মধ্যে থার্ড ওয়েভের আশঙ্কার খবর।এই বিপর্যস্ত,বিভ্রান্ত,বিমর্ষ  সময়ে শরীর ও মন ঠিক রাখা সবচেয়ে কঠিন কিন্তু ভীষণ জরুরি আর আবশ্যিক।এখন মনে রাখতে হবে যে প্রপার ডায়েট,ফিটনেস আর মেন্টাল হেলথ এই তিনটে বিষয়ে একসঙ্গে মনোযোগ দিতে হবে।সকালে এক্সারসাইজ করলেন কিন্তু সারাদিন বিমর্ষ,হতোদ্যম রইলেন অথবা এমনিতে খুব উৎফুল্ল থাকলেন কিন্তু সারাদিনের খাওয়ার প্রতি চূড়ান্ত অনিয়ম করলেন,সারাদিনে এক জায়গায় যাকে বলে ‘নট নড়ন চরণ’ কিন্তু সঠিক ডায়েট এমন করলে কোনও ফল হবে না,পুরো প্রচেষ্টাই বৃথা যাবে।     

ডায়েটিশিয়ান,নিউট্রিশনিস্ট আর ফিটনেস এক্সপার্টদের জরুরি টিপস    

) আপনার শরীর ও মনের সুস্থ সতেজ থাকা সম্পূর্ণ নির্ভর করছে সারাদিনে আপনি কতটা সচল থাকছেন অর্থাৎ কতক্ষণ এক্সসারসাইজ আর হাঁটাচলা করছেন কেননা এখনকার যে কোনও ক্রনিক রোগভোগের আমাদের সেডেন্টারি লাইফস্টাইল lকোভিড ছাড়া এখনকার যে কোনও শারীরিক    সমস্যার সূত্রপাতেই ডক্টর আপনার লাইফস্টাইল আর কোয়ালিটি অফ লাইফ কেমন এই দুই বিষয় প্রথমেই খেয়াল রাখেন কারণ ফিজিক্যাল,সোশ্যাল,আর মেন্টাল ওয়েল বিয়িং ঠিক রাখার ক্ষেত্রে নিউট্রিশনের ভূমিকা সর্বাগ্রে।

২) নিয়মিত মর্নিং ওয়াক,এক্সারসাইজের অব্যর্থ্য সুফল হল

   -আপনার শরীর আর গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গ প্রতঙ্গের ব্যায়ামে সতেজ থাকা।

     -স্ট্রেস,দুশ্চিন্তা থেকে মুক্তি।স্ট্রেস আর উদ্বেগ আমাদের ইমিউনিটির ক্ষতি করে।নিয়মিতএক্সারসাইজ ব্রেনে সেরেটোনিন এবং এন্ডোরফিন নিষ্কাশনে ডিপ্রেশন কমিয়ে দেয় আর ডিমেনশিয়া রুখতে সাহায্য করে।

-এখনকার সবচেয়ে জরুরি শরীরের ইমিউনিটি বৃদ্ধিতে সাহায্য করে।

-রেগুলার এক্সারসাইজের সঙ্গে সঠিক ডায়েট- আপনার বডি ওয়েট ঠিক রাখে আর ফ্যাট ঝরিয়ে দেয় যা যে কোনও রোগ প্রতিরোধে কার্যকরী।

-হাড়ের আর মাসলের শক্তিবৃদ্ধি করে।

ছবি-ইউবিউটি.কম

৩) নিবিড় মনোযোগ- 

গত দু বছরের অতিমারিতে রিসার্চে প্রমাণিত যে কোনও কাজে নিবিড় মনোযোগ স্ট্রেস, উদ্বেগ, আতঙ্ক,একাকীত্ব,দুশ্চিন্তা রোধে সাহায্য করে।নিবিড় মনোসংযোগ কোনও রকেট সায়েন্স নয় যে তাকে আয়ত্ত করা খুব কঠিন বরং বেশ সহজ।যখন আপনি কিছু খাচ্ছেন তখন শুধু মন দিয়ে খেয়ে যান অন্য কিছু চিন্তা না করে/যখন কিছু পড়ছেন,কাজ করছেন সেই সময় অন্য কিছু না ভেবে বা কোনও কিছুতে ডিস্টার্বড না হয়ে একমনে একাগ্রে সেই কাজ করা।

৪) ডায়েট– তাজা শাকসব্জি,ওট্স,সাবুদানা,ডাল,ডালিয়া, ছাতু,কার্বোহাইড্রেটস, চিকেন,মাছ,ডিম,পনির, সয়াবিন,বাদাম,আখরোট,স্যালাড, স্প্রাউট,ইডলি, উপমা, মুসুম্বি,পেয়ারা,কলা,আপেল,পেঁপে,গাজর,বিট,ব্রকোলি,বিন্স,বাঁধাকপি,ফুলকপি।এই ডায়েট শুধু কোভিড ইমিউনিটি বৃদ্ধি উপকারী নয়, এর ফলে পাইলস, ইনসমনিয়া, কোলেস্ট্রল, কনস্টিপেশন নিয়ন্ত্রণ হয়।

৫)করোনা নিউজ,নেগেটিভ নিউজ পরিত্যাগ করুন-সারা পৃথিবীর মৃত্যুসংখ্যা,ভ্যাকসিন সমস্যা নিয়ে কাজ করার মানুষরা কাজ করছেন।আপনি দিনরাত এই খবরের জেরে হতাশ,বিপর্যস্ত হয়ে না পড়ে এর থেকে দূরে থাকুন।শুধু আপডেট নিলেই চলবে,কারণ রিসার্চে প্রমাণিত সবসময় নেগেটিভ নিউজ আমাদের মনকে বিষাদে আচ্ছন্ন রাখে তাতে কোনও কাজ ভাল করে করা যায়না আর এর ফলে শরীর খারাপ হয়।মন তাজা আর প্রফুল্ল রাখতে গান শুনুন,বই পড়ুন,সিনেমা দেখুন,লেখালেখি করুন।

৬) ফোন থেকে দূরে থাকুন-শুধু কল রিসিভ বা কল করা,জুম কল,কন কল ছাড়া ফোন থেকে দূরে থাকুন,মেসেজ আপডেট পিং সাউন্ড মিউট করে দিন কারণ অনবরত অবাঞ্ছিত মেসেজ কাজের মনোযোগের সবচেয়ে বড় ব্যাঘাত ঘটায়।

৭)মোটিভেট ফ্যামিলি -আজ্ঞে হ্যাঁ।আপনাকে ফিট,সতেজ,সুখী দেখলে আপনার পরিবারের বাকিরাও হতাশা,বিষণ্ণতা কাটিয়ে প্রফুল্ল প্রাণচঞ্চল হয়ে উঠবে আর ঠিক উল্টো আপনি হতাশ,দুঃখী,বিমর্ষ থাকলে তাদের ভাল থাকার ইচ্ছায় বাধা পড়বে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *