১৫ টি বর্ষাকালে বাড়ির যত্নের টিপস

জামা কাপড় শুকানো,ভেন্টিলেশন,আলমারি,বাথরুম,বেসিন,ফার্নিচার ..

বর্ষাকাল যতই গীতিকার,কবিদের জন্য রোমান্টিক হোক না কেন বাড়ি সামলানোর জন্য বেশ একটা ঝকমারীর সময়।আর এখন যখন সবাই বাড়িবন্দি তখন ভেজা মেঝে,স্যাঁতস্যাঁতে আবহাওয়া থেকে বাড়িকে আর নিজেদেরকে ফ্রেশ রাখার …টিপস

১)এই সময় সবচেয়ে ঝামেলা কাপড় শুকনো।ঘরে ফ্যান চালিয়ে অস্থায়ী তারে মেলে শুকনো যায় কিন্তু একটু প্ল্যান করে দেখে নিয়ে যখন বৃষ্টি আসছেনা বা সবে তখনকার মত শেষ তখন বাইরে কাপড় মেলে দেওয়া।

২)ঘরে কাপড় শুকোলে একটু সোঁদা গন্ধ এলে কাচার সময় একটু বেকিং সোডা ব্যবহার করুন।

৩) ভেন্টিলেশন-বর্ষাকালে ক্রস ভেন্টিলেশন খুব জরুরি।বৃষ্টির পর বাড়ির দরজা জানলা খুলে দিন।এসি ব্যবহারের পরেও কারণ এতে ঘরের ভিজে ময়েশ্চার চলে গিয়ে তাজা হাওয়া বাতাস চলাচল করে। 

৪)কাঠের ফার্নিচার -এর নিয়মিত যত্নের প্রয়োজন এই সময়।কাঠের ফার্নিচার ঠিক রাখতে বাজারে নানারকম কেমিক্যাল পাওয়া যায় তাতে আসবাব ঠিক থাকে।এই সময়ে দরজা জানলার পাশ থেকে কাঠের ফার্নিচার দূরে রাখলে ভাল।

৫) বাথরুমে বেশিক্ষন ভেজা জামা কাপড় রাখবেন না।

৬)প্রত্যেক দরজার সামনে ডোর ম্যাট রাখুন।

৭) এই সময় ঘরের এদিকে ওদিকে সুগন্ধি মোমবাতি জ্বালিয়ে রাখলে ঘরের সোঁদা গন্ধ দূর হয়ে যায়।

৮) মেঝেতে কার্পেট ব্যবহারের অভ্যাস থাকলে বর্ষাকালে সেটা গুটিয়ে ফেলুন কারণ এতে কাদার দাগ লাগা আর বার বার পরিষ্কার করার ঝামেলা ,এছাড়াও বর্ষাকালে কার্পেট পরিষ্কার আর শুকনো হতে প্রচুর সময় লাগে।

৯) আলমারির ভেতর ন্যাপথলিন আর নিমপাতা রাখুন।জামা কাপড়ে সোঁদা গন্ধ দূর হবে।

১০)প্রতিদিনের কাচাকাচি কমানোর চেষ্টা করুন। 

১১) ঘরের দেওয়াল থেকে ফার্নিচার মিনিমাম ১০ সেন্টিমিটার দূরে রাখুন দেওয়ালের ড্যাম্প থেকে রক্ষা পেতে।

১২)কোথাও শ্যাওলা জমলে সাদা ভিনিগার স্প্রে করে দিন।

১৩) একটা বড় পাত্রে জলে দোলনচাঁপা,কামিনী,জুঁই ফুল রাখতে পারেন।

১ ৪) বাড়ির সমস্ত পাইপি আর ট্যাপ চেক করুন যে ওর থেকে জল চুঁইয়ে পড়ছে কিনা।

১৫) বেসিনের নিচের অংশ ভাল করে নিয়মিত পরিষ্কার করুন কারণ এই সময়ে এইস্থান ওদের খুব প্রিয়।ওখানে মসকিউটো রেপেলেন্ট বা ডিসিনফেক্ট্যান্ট স্প্রে করুন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *